লালমনিরহাটে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট নাতিকে বাঁচাতে গিয়ে দাদির মৃত্যু !

Bidhan DasBidhan Das
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:০৭ PM, ০১ সেপ্টেম্বর ২০২০

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটে  বিদ্যুৎস্পৃষ্ট নাতিকে বাচাঁতে বিদ্যুৎতায়িত হয়ে পাতানি বেওয়া (৬২) নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। এসময় নাতি রিয়াদ আলী (৮) গুরুতর অসুস্থ্য হয়।

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টার দিকে সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের আলোক দিঘী (আউলিয়ার মাঠ) এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলোক দিঘী গ্রামের বিদ্যুতের মেইন সংযোগ থেকে প্রায় দেড়’শ পরিবারের একটি পকেট সংযোগ ন্যাকেড তারের মাধ্যমে হায়দার আলীর একটি বাঁশ ঝাড়ের উপর দিয়ে নেয়া হয়। বাঁশ ঝাড়ের পাশ দিয়েই চলাচলের মুল রাস্তা। ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিলো শিশু রিয়াদ। এ সময় বাঁশের সাথে বিদ্যুতের তার লেগে থাকায় এবং বাঁশ ঝাড়ের নিচে পানি থাকায় পানিসহ পুরো এলাকা বিদ্যুৎতায়িত হয়ে যায়। পানির উপর দিয়ে রিয়াদ রাস্তা পারাপার হতে চাইলে ছিটকে পড়ে যায় সে। পরে তার চিৎকারে পাশেই দাড়িয়ে থাকা দাদি রিয়াদকে বাচাঁতে এগিয়ে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে পানিতে পড়ে যাায় দাদি পাতানি বেওয়া।

পরে এলাকাবাসী দ্রুত বিদ্যুৎ অফিসে ফোন দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার পর গুরুতর আহত অবস্থায় দাদি-নাতিকে উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর হাসপালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দাদি পাতানী বেওয়াকে মৃত ঘোষনা করেন এবং শিশু রিয়াদকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করে নেন।

ওই গ্রামের সামছুল হক (৫৫) নামে এক মধ্যবয়সী অভিযোগ করে বলেন, বাঁশ ঝাড়টি কেটে ফেলার জন্য একাধিকবার বলা হলেও বাঁশ ঝাড় মালিক হায়দার আলী তা কর্নপাত করেনি। পরে এ ব্যাপারে কয়েকবার শালিস বৈঠকও বসে। তারপরেও কোন সমাধান না হওয়ায় স্থানীয় চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী মাষ্টারের সহযোগিতায় বিদ্যুৎ সংযোগকারী পরিবারের নিকট থেকে ৮ হাজার টাকা চাঁদা তুলে হায়দার আলীকে দেয়া হয়। তারপরেও হায়দার আলী বাঁশ ঝাড় কেটে না ফেলায় আজ পাতানী বেওয়াকে জীবন দিতে হলো।

মৃত পাতানী বেওয়ার ছোট ভাই নুর ইসলাম জানান, বাঁশ ঝাড় কেটে ফেলার জন্য বার বার বলেও কোন লাভ হয়নি। পরে এলাকাবাসী বাঁশ কাটার জন্য হায়দার আলীকে ৮ হাজার টাকাও দেয়া হয়। টাকা নেয়ার পরও তিনি বাঁশ না কাটায় আজ তার বোনকে জীবন দিতে হলো। তিনি তার বোনের মৃত্যুর বিচার দাবী করেন।

কুলাঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী মাষ্টার বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করলেও বাঁশ কাটার জন্য হায়দার আলীকে ৮ হাজার টাকা দেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন।

বিডি

জেলার খবর

আপনার মতামত লিখুন :