মেয়েদের পোশাক নিয়ে মন্তব্য করে সমালোচনায় অনন্ত জলিল

Bidhan DasBidhan Das
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:০৮ PM, ১১ অক্টোবর ২০২০

বিনোদন ডেস্ক : নারীদের ধর্ষণ ও সহিংসতার ক্রমবর্ধমান ঘটনার বিরুদ্ধে দেশব্যাপী বিক্ষোভের মধ্যেই মেয়েদের পোশাক নিয়ে মন্তব্য করে বিপাকে পড়েছেন অভিনেতা অনন্ত জলিল। ধর্ষণের জন্য নারীদের খোলামেলা পোশাককে দায়ী করে এ অভিনেতা বলেছেন, এ ধরনের পোশাকের কারণে মানুষ আপনার মুখের পরিবর্তে আপনার শরীর দেখে। তারা অশ্লীল মন্তব্য করে এবং ধর্ষণের কথা চিন্তা করে।

শনিবার (১০ অক্টোবর) রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করেন অনন্ত জলিল। ভিডিও বার্তার শুরুতে অনন্ত বলেন, এই যে তোমরা যারা ধর্ষণ করছো, তোমরা বলবো না তোরা বলবো? তোরা বলবো! তোমাদের স্ত্রী-কন্যাকে যদি কেউ ধর্ষণ করে তবে তোমাদের কেমন লাগবে? তোমরা তো অমানুষ! তোমাদের ভালোই লাগবে বোধহয়! না হলে তো অন্য মা-বোনকে ধর্ষণ করতে পারতে না। তোর যে মনুষ্যতা সেটা তো মরে গেছে। নিজেকে বীর পুরুষ ভাবো? কাপুরুষের দল! যদি বিয়ে না করে থাকিস তবে তোরও জীবনেও তো একজন মেয়ে আসবে! তোর জন্য তোর বাবা-মা কলঙ্কিত। তোর বাবা-মাকে মানুষ কী বলে?

এ পর্যন্ত সবকিছু ঠিকই ছিল। কিন্তু নারীদের পোশাক নিয়ে বক্তব্য দেওয়ার পর তৈরি হয়েছে সমালোচনা। নারীদের উদ্দেশ্যে অনন্ত জলিল বলেন, দেশের সমস্ত মেয়েদের উদ্দেশ্যে একজন ভাই হিসেবে বলতে চাই- সিনেমা, টেলিভিশন, সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্যান্য দেশের মেয়েদের অশ্লীল ড্রেসআপ দেখে নিজেরা তা অনুসরণ করার চেষ্টা করো। আর অশালীন কাপড় পরে বের হও। আল্লাহ তা’আলা তোমাদের যে চেহারা দিয়েছেন, তার দিকে বখাটেরা না তাকিয়ে তখন তোমাদের ফিগারের দিকে তাকায়। আর বিভিন্নভাবে তোমাদের উদ্দেশ্যে মন্তব্য করে। সেখান থেকে ধর্ষণ করার চিন্তা তাদের মাথায় আসে। আশালীন কাপড় পরে তোমরা নিজেকে কি মর্ডান মনে করো?

অনন্তের এই বক্তব্যের পর নেটিজেনরা মন্তব্য করে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। অনন্তর এমন বক্তব্যে ক্ষোভ উগড়েছেন অভিনেত্রী ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত সংগীতশিল্পী মেহের আফরোজ শাওন। তিনি অনন্তকে বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেন। এ বিষয়ে বেশকজন অভিনেত্রী প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

লাক্স তারকা অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন বলেন, অনন্ত জলিল সাহেব যে বক্তব্য দিয়েছেন তা গুটি কয়েক মানুষের ভাবনা নয়। কেউ যদি ভেবে থাকেন অল্প সংখ্যক মানুষ এ ধরনের ভাবনা পোষণ করেন তবে ভুল ভাবছেন। এমন চিন্তা জলিল সাহেব একাই পোষণ করেন না। পুরুষতান্ত্রিক সমাজে এই ধরনের চিন্তা নারী-পুরুষ উভয়ে পোষণ করেন। ধর্ষক আমাদের মাঝেই রয়েছে-তেমনি এ ধরনের চিন্তা ভাবনা যারা পোষণ করেন তারাও আমাদের আশেপাশেই রয়েছেন।

প্রচ্ছদশিল্পী চারু পিন্টু লিখেছেন- ‘ফালতু কথা বললেন জনাব সিআইপি। সব দোষ পোশাকের হয়ে গেল? পাবলিকলি যখন কথা বলবেন তখন হিসেব করে কথা বলা উচিত। যে ধর্ষক তার কাছে সাধারণ পোশাক বা বোরকাওয়ালী কোনোটাই মাফ পায় না। জরুরিটা হলো পারিবারিক শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিরোধ। এটাকেই জোর দিয়ে কথা বলা উচিত।

এদিকে সমালোচনার মুখে পড়ে রবিবার (১১ অক্টোবর) বিকেল ৫টায় অনন্ত তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ থেকে ভিডিওটি সরিয়ে ফেলেন।

এরপর এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, গতকালের ভিডিওতে আমি মূলত মেয়েদেরকে শালীনতা বজায় রাখার জন্য বলতে চেয়েছি। অনেকেই বিষয়টিকে পজিটিভভাবে নিয়েছেন আবার অনেকেই নেগেটিভ ভাবে নিয়েছেন, আমি কোনো বিতর্কে জড়াতে চাই না। কেউ ভুল বুঝে থাকলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

বিডি

আপনার মতামত লিখুন :