বীরগঞ্জে গো-খাদ্যের সঙ্কট বিপাকে খামারিরা

Bidhan DasBidhan Das
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:৪৫ PM, ০৯ অক্টোবর ২০২০

খায়রুন নাহার বহ্নি, বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি : দিনাজপুরের বীরগঞ্জে গো-খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এ সুযোগে গো-খাদ্য খড় ব্যবসায়ীরা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে খড় সংগ্রহ করে উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে চড়া দামে বিক্রি করছে। ফলে চরম দুঃচিন্তায় পড়েছে গবাদী পশু পালনকারী মালিকরা। তাই তারা পশু পালন অনেকটাই গুটিয়ে নিচ্ছেন।

জানা যায়,বিগত বছরগুলোতে কম-বেশি গো-খাদ্যের সংকট দেখা দিলেও এ বছর সংকট চরম আকারে দেখা দিয়েছে। বর্তমানে উপজেলার গাভী খামারি ও গরু মোটা তাজাকরণসহ অধিকাংশ গরু খামারীকে। গো-খাদ্যের সংকটে বিপাকে পড়েছে সাধারন গরু মালিকরাও, চড়া মূল্যে গো-খাদ্য ক্রয় করে গরু পালনে হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

চলতি মৌসুমে দেশব্যাপী ৫ম দফা বন্যা ও অতিবৃষ্টিতে গোটা উপজেলায় খড় নষ্ট হয়ে যাওয়ায় গো-খাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে। স্থানীয় খড় ব্যবসায়ীরা দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, পীরগঞ্জ,দেবীগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে খড় সংগ্রহ করে এনে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করছে।

পৌরশহরের উপজেলা রোডস্থ খড় বিক্রেতা খালেক, মান্নান, পনচো, রানা ও রাসেদ জানায়, এবার মোকামেই খড়ের দাম বেশি। সেখানে পাঁচশ থেকে আটশ টাকা দরে খড়ের পন কিনতে হয়। খরচ বরচ বাদ দিয়ে কিছুই থাকে না। ফলে বাজারে ১ হাজার থেকে ১১শ টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। তবে নতুন ধানের খড় বাজারে আসলেও এগুলোর দাম ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের হরিবাসর এলাকার গরুর মালিক সমর সাহা জানান,আমার ৩টি গরু। এবার অতিবৃষ্টির কারণে খড় নষ্ট হয়ে যাওয়ায় অতিকষ্টে চড়ামূল্যে খড় কিনে গরুকে খাওয়াতে হচ্ছে। ১১শ টাকা দিয়ে কিনলাম যা ৩টি গরুকে খাওয়ালে ৮ -১০ দিনে শেষ হবে। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি গরু বিক্রি করে দিবো।

বিডি

জনদুর্ভোগ

আপনার মতামত লিখুন :