প্রধান বিচারপতি বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন -সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন

tkeditortkeditor
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:১৫ PM, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

ডেস্ক রিপোর্ট : সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক অভিযোগ করে বলেছেন, প্রধান বিচারপতি বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন। সোমবার সুপ্রিম কোর্ট মাজার গেট এলাকায় সাংবাদিকদের কাছে তিনি এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি খালেদা জিয়ার মুখপাত্র হিসেবে কথা বলছেন, আমি তার পদত্যাগ দাবী করছি।’ তিনি বলেন, ‘গতকাল সুপ্রিমকোর্টের রেজিস্ট্রার অফিস থেকে আমার বিষয়ে যে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে তা বিভ্রান্তিকর। আমার বক্তব্যকে টুইস্ট করা হয়েছে। গতকাল আমি সংবাদ সম্মেলনে করিনি।’ তবে অনেক ‘নতুন তথ্য’ নিয়ে সামনে সংবাদ সম্মেলন করবেন বলে জানান তিনি।

বার সভাপতি, অ্যাটর্নি জেনারেল এবং প্রধান বিচারপতির ‘মতে’ আপনার সাম্প্রতিক কার্যক্রমে বিচারবিভাগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘দেখেন, চিফ জাস্টিসতো নিজেই বলেছেন, তিনি শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন এবং সাকা চৌধুরীর পরিবারের সঙ্গে মিটিং করেছেন। এতে করে কি বিচার বিভাগের মর্যাদা ক্ষুন্ন হচ্ছে না?’

এর আগে নানা নাটকীয়তা শেষে অবসরের পর নিজের লেখা রায় জমা দিতে পারছেন বলে জানিয়েছেন বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী। আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত এই বিচারক রোববার সন্ধ্যায় বলেন, তার লেখা রায় ও আদেশ গ্রহণ করতে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহাব মিঞা ‘রাজি হয়েছেন’।

বিচারপতি শামসুদ্দিন অবসর নেওয়ার আগে আপিল বিভাগের যে বেঞ্চে ছিলেন, বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা সেই বেঞ্চের নেতৃত্বদানকারী বিচারক। অবসরের পর বিচারকদের রায় লেখার বিরোধী প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নির্দেশনার পর বিচারপতি ওয়াহহাব মিঞা তার লেখা রায় গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন বলে সকালেই অভিযোগ করেন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী।

অবসরের পর তার লেখা ১৫টির মতো রায় এবং আদেশগুলো নিতে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাকে চিঠি লেখার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। সেইসঙ্গে প্রধান বিচারপতির আচরণকে ‘সংবিধানপরিপন্থি’ও’ বলেন তিনি।

চিঠি পাঠানো এবং রায় না নেওয়ার অভিযোগ তুলে ধরে বিচারপতি শামসুদ্দিন সর্বোচ্চ আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার পর সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি আসে। তাতে প্রধান বিচারপতি চার মাস আগে অবসরে যাওয়া বিচারপতিকে রায় নিয়ে গণমাধ্যমে কথা না বলার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি তার কাছে থাকা ‘অনিষ্পত্তিকৃত’ রায়ের মামলার ফাইলগুলো সুপ্রিম কোর্ট রেজিস্ট্রার জেনারেলের অফিসে জমা দেবেন বলেও প্রত্যাশা করেন প্রধান বিচারপতি।

এরপর সন্ধ্যায় বিচারপতি শামসুদ্দিন রায় জমা দিতে পারছেন জানিয়ে বলেন, “বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞার সাথে আগে মৌখিক কথা হয়েছিল, রায় ও আদেশ গ্রহণ করা নিয়ে, তখন বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞা অপারগতা প্রকাশ করেছিলেন। তাই এগুলো জমা দেওয়ার কোনো প্রশ্নই উঠতে পারেনি।”

বিচারপতি শামসুদ্দিনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, “প্রধান বিচারপতি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারক বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞার দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি মাননীয় প্রধান বিচারপতিকে অবহিত করেন যে সাবেক বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী তার কাছে লিখিত রায় কিংবা আদেশ গ্রহণ করার জন্য জমা দেননি।”

গত অক্টোবরে অবসরে যাওয়া শামসুদ্দিন সকালে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, অবসরে যাওয়ার পর যেসব রায় ও আদেশ তিনি লিখেছেন, তা জমা দিতে চাইলেও প্রধান বিচারপতির ‘নির্দেশনার কারণে’ তা নেওয়া হয়নি।

“আমার প্রিজাইডিং জজ, মাননীয় বিচারপতি জনাব মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞাকে আমার লেখা সমাপ্ত হওয়া রায় ও আদেশগুলো গ্রহণ করার অনুরোধ করলে তিনি অপারগতা প্রকাশ করে বলেন যে, মাননীয় প্রধান বিচারপতির নির্দেশনা অনুসারে কোনো অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির লিখিত রায় ও আদেশ গ্রহণ করা যাচ্ছে না।”

বিচারপতি শামসুদ্দিনের বক্তব্য অনুযায়ী, অবসরের পর তার ১৫টির মতো রায় লেখার বাকি ছিল, সেই সঙ্গে ছিল ৭০টির মতো আদেশ। সবই লেখা ইতোমধ্যে শেষ করেছেন তিনি।

বিচারপতি এস কে সিনহা তার প্রধান বিচারপতি হিসেব দায়িত্ব নেওয়ার বছর পূর্তিতে গত মাসে দেওয়া এক বাণীতে বিচারকদের অবসরের পর রায় লেখা ‘সংবিধান পরিপন্থি’’ বলার পর তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সৃষ্টি হয়।

বিচারপতি শামসুদ্দিনকে কেন্দ্র করে তার ওই বক্তব্য ছিল ধরে নিয়ে আইনপ্রণেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বিচার বিভাগের ‘কোন্দল’ প্রকাশ্যে এনে উত্তেজনা সৃষ্টির জন্য বিচারপতি এস কে সিনহার সমালোচনাও করেন।

আপিল বিভাগের বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময় যুদ্ধাপরাধের মামলার আপিলের শুনানি নিয়ে বিচারপতি শামসুদ্দিনের সঙ্গে প্রধান বিচারপতির টেলি-কথোপকথনের একটি অডিও ক্লিপ গত বছর প্রকাশ হওয়ার পর তা নিয়ে শুরু হয়েছিল আলোচনা।

এরপর অবসরে যাওয়ার আগে গত সেপ্টেম্বরে বিচারপতি শামসুদ্দিন তার পেনশন আটকে দেওয়ার অভিযোগ তুলে প্রধান বিচারপতির অভিশংসন চেয়ে রাষ্ট্রপতিকে একটি চিঠি দিলে তা নিয়েও ব্যাপক আলোচনা ওঠে। বাংলাদেশের ইতিহাসে আলোচিত বেশ কয়েকটি মামলার রায় প্রদানকারী বিচারক শামসুদ্দিন চৌধুরী ২০০১ সালের জুলাই মাসে হাই কোর্ট বিভাগে অতিরিক্ত বিচারক হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন।

জেলার খবর

আপনার মতামত লিখুন :