পীরগঞ্জে ফসলি জমি দখল করে ইটভাটা নির্মান; ব্যাহত হচ্ছে শস্য উৎপাদন

tkeditortkeditor
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:০৭ AM, ০৬ মে ২০১৬

জাকির হোসেন, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাও)থেকে : ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে অবাধে গড়ে উঠেছে ইটভাটা । এসব ভাটায় ফসলি জমি থেকে উর্বর মাটি সরবরাহ করা হচ্ছে । কৃষি জমি ধ্বংস ও খাদ্য উৎপাদন ব্যাহত হলেও প্রশাসন নির্বকার ।

পীরগঞ্জ – বীরগঞ্জ সড়কের উভয় পাশে উপজেলা সদরের ৪ কিলোমিটারর ভিতরে বেশ করয়কটি ইটভাটা তৈরী হয়েছে । চোখে পড়ে না উপজেলা প্রশাসন,কৃষি বিভাগ জেলা প্রশাসনসহ পরিবেশ অধিদপ্তরের লোকজনের ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বেলাল নামে এক ব্যক্তি উপজেলার গোদাগাড়ী নামক স্থানে (এস বি এস ) নামে একটি  লাইসেন্স বিহীন  ইটভাটা তৈরী করে চালিয়ে যাচ্ছেন , তিনি আবারও নতুন করে ভেমটিয়া নামক স্থানে প্রায় ৩০-৪০ বিঘা ফসলি জমি দখল করে দেদারসে ইটভাটা তৈরী করছেন দেখার কেউ নেই। ইটভাটা আইন ২০১৩ অনুযায়ী ইটভাটা নির্মানের ক্ষেত্রে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কর্তৃক অনুমোদনের পর জেলা প্রশাসকের অনুমোদন থাকতে হবে । ফসলি জমি উপরীভাগের মাটি বা টপসয়েল ব্যবহার করলে প্রথমবার ২ বছর কারাদন্ড অথবা ২ লাখ টাকা জরিমানা ,দ্বিতীয়বার অনুরোপ কাজের জন্য ২ থেকে ১০ লাখ টাকা জরিবানা অথবা ২ বছর থেকে ১০ বছরের কারাদন্ডের বিধান রেখে ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন আইন ২০১৩ সালের খসরা করা হয়। সেই সাথে লাইসেন্স বিহীন ভাটা পরিচালনা করলে ১ বছরের কারাদন্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। আবাসিক,জনবসতি, সংরক্ষিত ,জলাভূমি,বনভূমির মতো গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় স্থাপন করলে ১ বছরের কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা এবং কয়লার পরিবর্তে কাঠ ব্যবহার করলে ৩ বছরের জেল ও ৩ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে আইনটি অনুমোদিত হয় ।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আবুল কালাম আজাদ জানান, ফসলি জমির উর্বর মাটি সরবাহের ফলে জমিগুলো আগামী ১৫-২০ বছরের জন্য উর্বরতা হারাবে তিনি আরও জানান জমির উপরের টপসয়েল সরবরাহ করলে জমির উর্বরতা নষ্ট হয়ে যায় ।

এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও জেলা  প্রশাসক মুকেশ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন,আমাদের কাছে কোন আবেদন করা হয়নি এ ব্যাপারে আমার জানা নেই। তবে ৩০-৪০বিঘা ফসলি জমি দখল করে ইটভাটা করার কোন নিয়ম নেই, আমি পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহন করব ।

অপরাধ

আপনার মতামত লিখুন :