ধ্বংসের মুখে হরিপুরের জমিদার বাড়ীটি

tkeditortkeditor
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৯:০২ PM, ১৪ জানুয়ারী ২০১৬

জসিমউদ্দীন (ইতি) হরিপুর, ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাও জেলার হরিপুর উপজেলায় অবস্থিত রাঘবেন্দ্র  জমিদার বাড়ীটি যত্ন আর সংস্করের অভাবে ধ্বংসের মুখে এসে দাড়িয়েছে। ১৪০০ খ্রীষ্টাব্দের পূর্বে মুসলিম শাসনামলে হরিপুর উপজেলা খোলড়া পরগনার অর্ন্তগত ছিল। মেহেরুন্নেছা ওরফে কামরুল নাহার নামে এক বিধবা মুসলিম মহিলার উপর ছিল এ পরগনার জমিদার বাড়ি। খাজনা অনাদায়ে জমিদার মেহেরুন্নেছা জমিদারী অংশ বিশেষ নিলামে উঠলে কাপড়ের ব্যবসায়ী ঘনশ্যাম কুন্ডু তা কিনে নেন। ঘনশ্যাম কুন্ডু এর পরবর্তীতে বংশধরদের একজন রাঘবেন্দ্র রায়, তিনি ১৮৯৩ সালে রাজবাড়ীর নির্মণ কাজ শুরু করেন। তার পুত্র জগেন্দ্র নারায়ণ রায় উনবিংশ শতাব্দির শেষদিকে রাজবাড়ীর নির্মাণ কাজ শেষ  করেন। ভবনটির পূর্ব পাশ্বে শিবমন্দির ও মন্দিরের সামনে নাট্যাশালা ছিল এবং একটি বড় পাঠাগার ছিল। রাজবাড়ীর সামনে ছিল সিংহ দরজা। আজ সেই সিংহ দরজা আর নেই। সারা বাড়ীতে আগাছা পরগাছায় ছুয়ে গেছে। দরজা-জানালা ভেঙ্গে গেছে  অনেক আগে। দীর্ঘদিন এই বাড়ীটি সংস্কার না করাই ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম হয়েছে। ১৯০০ সালের দিকে ঘনশ্যামের বংশ ধরেরা বিভক্ত হয়ে পরে। রাঘবেন্দ্র জগেন্দ্র নারায়ণ রায় কতৃক রাজবাড়ীটি বড় তরফের রাজবাড়ী নামে পরিচিত। এই রাজবাড়ীর পশ্চিমে নগেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী ও গিরিচা নারায়ণ চৌধুরী ১৯১৩ সালে আর একটি রাজবাড়ী নির্মাণ করেন । যার নাম ছোট তরফের রাজবাড়ী । এটির অবস্থাও অনুরুপ। বাড়ীর ইটের দেওয়ালে জন্মেছে বিভিন্ন ধরনের গাছপালা। দীর্ঘদিন মানুষজন বসবাস না করায় এটি এখন সাপ, ব্যাঙের আস্থানায় পরিণত হয়েছে। হরিপুরের এই ঐতিহ্যবাহী রাজবাড়ীটি সংস্কারের অভাবে এখন কালের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়েছে। বর্তমানের পরিত্যাক্ত এই রাজবাড়ীর বিভিন্ন কক্ষ বিভিন্ন রকমের অফিস-সমিতি ও সংগঠনের অফিস হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এ ব্যাপারে হরিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জানান, হরিপুর রাজবাড়ী দুটি এ এলাকর ঐতিহ্যবাহী নিদর্শন। রাজা ও রাজ পরিবারের ঐতিহ্য ধরে রাখতে এটি সংস্কার করা উচিত।

জেলার খবর

আপনার মতামত লিখুন :