ঠাকুরগাঁওয়ে করোনার মধ্যেও বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় বর ও কনের বাবাকে জরিমানা

নিজস্ব প্রতিনিধি : সারাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদূর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় করোনার সংক্রমণ রোধে আগামী ৭ জুলাই পর্যন্ত সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষনা দেয় সরকার।আজ শুক্রবার সরকার ঘোষিত সর্বাত্মক লকডাউনের ২য় দিন। সারাদেশের ন্যায় ঠাকুরগাঁওয়েও সর্বাত্মক লকডাউন পালনে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়।এ অবস্থায় গতকাল ও আজ সাধারণ মানুষকে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া শহরমুখি হতে দেখা যায়নি।
কিন্তু গোপনে গ্রাম-গঞ্জে বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজন করে চলেছে বর ও কনে পক্ষ।এতে মানা হচ্ছে না কোন প্রকার স্বাস্থবিধি, ফলে করোনার সংক্রমনের ঝুকি বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয় সেই সব এলাকায়।তবে বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজনের খবর গোপনে জানতে পেরে বসে থাকেনি প্রশাসন। তড়িৎগতিতে ছুটে গেছেন বিয়ে বাড়ী অনুষ্ঠানে, করেছেন জরিমানা, করেছেন সতর্ক।
গোপনে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজনের খবর জানতে পেরে আজ শুক্রবার (২ জুলাই) সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের দক্ষিণ বঠিনা গ্রামে অনুষ্ঠিত বিয়ে বাড়ী অনুষ্ঠানে হাজির হন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন।ঘটনার সত্যতা পেয়ে পাশাপাশি দুটি বিয়ের অনুষ্ঠান পন্ড করে দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা করে মোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন তিনি।
দন্ডিতরা হলেন- সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের দক্ষিণ বটিনা বানিয়াপাড়া গ্রামের মৃত ঘন শ্যাম এর ছেলে ভাগীরথ (৪৫)। তিনি ঘটা করে ছেলের বৌ-ভাতের আয়োজন করেছিলেন ও অপরজন একই ইউনিয়নের দক্ষিণ বটিনা শ্রীখড়ী গ্রামের মৃত ধীরেন্দ্র নাথ এর ছেলে শ্রী ইলেকশন (৪৫), তিনি ঘটা করে মেয়ের বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন।
এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন বলেন, সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের মধ্যেও মানুষ তা অমান্য করে বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে, যা দন্ডনীয় অপরাধ।করোনার এই পরিস্থিতিতে এখনো যদি আমরা নিজেরাই সতর্ক না হই তাহলে সামনে আমাদের আরও খারাপ অবস্থা দেখতে হবে।তাই সতর্ক হই, সাবধানে থাকি, সরকারি নির্দেশনা মেনে চলি।
বিডি

Leave a Reply