কালের গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার কুপিবাতি

tkeditortkeditor
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:৩৬ AM, ১৭ জানুয়ারী ২০১৬

ডেস্ক রিপোর্ট : এককালে গ্রাম বাংলার ঘরে ঘরে কুপিবাতি ছিল। এখন খুব কম চোখে পড়ে। গ্রাম বাংলার অতি প্রয়োজনীয় এই কুপি আজ বিলীন হওয়ার পথে। অমাবশ্যার রাতে মিটি মিটি আলো জ্বালিয়ে গ্রামের মানুষের পথচলার স্মৃতি এখনো সৃষ্টিশীলদের শিহরিত করে। একটা সময় ছিল যখন গ্রাম বাংলার আপামর জনসাধারণের অন্ধকারে আলোক বর্তিকার কাজ করত কুপি। এই কুপিগুলোও ছিল বাহারি ডিজাইনের ও রংয়ের। এগুলো ছিল মাটির, লোহার, কাঁচের আবার পিতলের তৈরী। নিজ নিজ সামর্থ অনুযায়ী লোকজন কুপি কিনে ব্যবহার করতেন। বাজারে সাধারণত ছোট ও বড় এই দুই ধরনের কুপি পাওয়া যেত। বেশি আলো পাওয়ার জন্য ছোট কুপিগুলোর জন্য কাঠ, মাটি বা কাঁচের তৈরি গছা (স্ট্যান্ড) ব্যবহার করা হতো। এই গছাগুলোও ছিল বিভিন্ন ডিজাউনের। কিন্তু বর্তমানে গ্রাম বাংলায় বিদ্যুতের ছোঁয়ায় কুপির কদর হারিয়ে গেছে। বিদ্যুৎ না থাকলেও অবশিষ্ট্য সময় মানুষজন বিভিন্ন ধরণের চার্জার ব্যবহার করছেন। গ্রাম বাংলার আপামর লোকের কাছে কুপির কদর হারিয়ে গেলেও এখনও অনেক লোক আছেন যারা কুপির এই স্মৃতিকে অাঁকড়ে ধরে আছেন। সৌখিন অনেকে এখনও কুপি ব্যবহার করছেন। কেউ কেউ আবার সযত্নে আবহমান গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের নিদর্শন স্বরূপ এটি সংরক্ষণ করছেন। কুপির কদর ও ব্যবহার যে হারে লোপ পাচ্ছে এতে করে ভবিষ্যতে কুপি বাতির স্মৃতি ছাড়া আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না বলে মনে করছেন বিজ্ঞজনরা। আবহমান গ্রাম বাংলার কুপি বাতির মতো অনেক ঐতিহ্যময় নিদর্শন আজ প্রযুক্তির কল্যাণে বিলীন হওয়ার পথে।

নির্বাচিত লেখা সমূহ

আপনার মতামত লিখুন :