“এমনে যাবেন, না কলার ধরে নিয়ে যাবো”

tkeditortkeditor
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:০৮ AM, ১০ মার্চ ২০১৬

ঠাকুরগাঁওয়ের খবর : ঠাকুরগাঁও রোড এলাকার কিছু উশৃঙ্খল ছেলেদের দ্বারা ঠাকুরগাঁও সুগার মিলস্’ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক(এমডি) প্রকৌশলী মোঃ এনায়েত হোসেন’র গাড়ী ঘেরাও করার পর তাঁকে নিজেদের আস্তানায় নিয়ে যাওয়ার জন্য উল্লেখিত বাক্যটি বলেন, ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর মোঃ একরামুদৌল্লা সাহেব।

জানা যায়, মঙ্গলবার রাত আনুমানিক ৯টার সময় ঠাচিক এমডি এনায়েত হোসেন ও জিএম (ফার্ম) সামসুজ্জামান সেলিম অফিসিয়াল উপহার সামগ্রী ক্রয়ের জন্য শহীদ ইয়াকুব হোসেন মার্কেটের সামনে গাড়ী দাড় করিয়ে মার্কেটে ঢোকেন। কেনাকাটার পর ফিরে এসে দেখেন তাঁর গাড়ীর সামনে কয়েকজন যুবক দাড়িয়ে রয়েছে। গাড়ীর কাছে আসা মাত্র যুবকরা এগিয়ে এসে বলেন, আপনাকে সাহেব কমিশনার তাঁর গদিতে ডাকছে।এ সময় তিনি যেতে অস্বীকৃতি জানালে তাদের সাথে বাক-বিতন্ডা শুরু হয়।এরই মাঝে সাহেব কমিশনার উপস্থিত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ শুরু করেন।অপরদিকে জিএম (ফার্ম)’র সাথেও অসদআচরণ শুরু করে উশৃঙ্খল যুবকরা। এরই এক পর্যায়ে কমিশনার সাহেব ক্ষিপ্ত হয়ে এমডিকে বলেন, “এমনে যাবেন, না কলার ধরে নিয়ে যাবো”। এ কথা শোনার পর  এমডি মান-সম্মান ক্ষুন্ন হওয়ার ভয়ে তাদের সাথে পার্শ্ববর্তী রেল ষ্টেশনের কাছে কমিশনারের কথিত গদিতে যেতে বাধ্য হন। সেখানে গিয়ে চলে আরেক দফা মানসিক নির্যাতন।পরবর্তীতে ঘন্টা দেড়েক পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও সুগার মিলস্ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মোঃ এনায়েত হোসেন এর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, গতকালের ঘটনাটি ছিল ভীষণ পীড়াদায়ক। আমাকে ও জিএম (ফার্ম)কে সাহেব কমিশনার লাঞ্ছিত করেছে।আমি বিষয়টি আমার উর্দ্ধতনকে অবহিত করেছি এবং জেলা আওয়ামীলীগের সাঃ সম্পাদক সাদেক কোরাইশী সাহেবকেও মৌখিকভাবে জানিয়েছি।

কি কারণে এমনটা হয়েছে জানতে চাইলে  তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের মিলের স্কুলে তাঁর ভাগিনা পরিচয়ে এক ছাত্রের ভর্তির জন্য সাহেব কমিশনার তদ্বির করেন। কিন্তু আসন না থাকায় ৪র্থ শ্রেণীতে এ বছর ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হচ্ছে না এটা তাকে জানিয়ে দিলে তিনি আমার উপর ক্ষুব্ধ হন। আমি তাকে বারবার বোঝানোর চেষ্টা করি ১ম ও ২য় শ্রেণী ছাড়া অন্য শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের এখানে ভর্তির সুযোগ নেই।তিনি তা মানতে রাজী নয়।সম্ভবত এসব কারণেই তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। এমডি আরো বলেন, উর্দ্ধতনের নির্দেশে এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুদ্দৌলা সাহেব এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার সাথে সুগার মিলের এমডি’র একটি অনাকাংখিত ঘটনা ঘটেছে, আমি রাগের মাথায় এমডির সাথে সামান্য রাগারাগি করেছি।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার ফারহাত আহম্মেদ জানান, আমরা অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি শক্ত ভাবে দেখা হচ্ছে।

অপরাধ

আপনার মতামত লিখুন :